Breaking News
বাংলা ব্যাকরণ ও এর আলোচ্য বিষয় কয়টি
বাংলা ব্যাকরণ ও এর আলোচ্য বিষয় কয়টি

বাংলা ব্যাকরণ ও এর আলোচ্য বিষয় কয়টি

বাংলা ব্যাকরণ ও এর আলোচ্য বিষয় কয়টিঃ প্রিয় পাঠক,  আসসালামু  আলাইকুম।  আশা করি  আল্লাহর রহমতে ভালই আছেন। আপনাকে স্বাগতম আমাদের ওয়েবসাইটে।  আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে মূলত জব প্রিপারেশন মূলক পোস্ট করে থাকি এবং  বিভিন্ন চাকরির প্রস্তুতি এবং নিউজ বিষয়ে পোস্ট প্রকাশ করি । আজকে আমরা বাংলা ব্যাকরণ ও এর আলোচ্য বিষয় কয়টি নিয়ে বিশদ আলোচনা করব।  তো চলুন তাহলে শুরু করা যাক আজকের টপিক নিয়ে আলোচনা।

Table of Contents

বাংলা ব্যাকরণ ও এর আলোচ্য বিষয় কয়টি

বাংলা ব্যাকরণ ও এর আলোচ্য বিষয় কয়টি

ব্যাকরণ শব্দটি সংস্কৃত শব্দ। ব্যাকরণ (= বি + আ+ কৃ + অন) শব্দটির বুৎপত্তিগত অর্থ বিশেষভাবে বিশ্লেষণ। 

ব্যাকরণ কাকে বলে?

ব্যাকরণ শব্দের অর্থ হচ্ছে বিশেষভাবে বিশ্লেষণ। 

সংজ্ঞা: যে শাস্ত্রে কোন ভাষার বিভিন্ন উপাদানের প্রকৃতি ও স্বরূপের বিচারবিশ্লেষণ করা হয় এবং বিভিন্ন উপাদানের সম্পর্ক নির্ণয় ও প্রয়োগবিধি বিশদভাবে আলোচিত হয়, তাকে ব্যাকরণ বলে। অর্থাৎ কোন ভাষার অভ্যন্তরীণ নিয়মরীতিই সেই ভাষার ব্যাকরণ হিসেবে বিবেচিত। ব্যাকরণকে বলা যায় ভাষার সংবিধান। 

ব্যাকরণ পাঠের প্রয়োজনীয়তা  কি কি?

ব্যাকরণ পাঠের প্রয়োজনীয়তা: ব্যাকরণ পাঠ করে ভাষার বিভিন্ন উপাদানের গঠন প্রকৃতি ও সেসবের সুষ্ঠু ব্যবহারবিধি সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করা যায় এবং লেখায় ও কথায় ভাষা প্রয়োগের সময় শুদ্ধাশুদ্ধি নির্ধারণ সহজ হয়। 

বাংলা ব্যাকরণ 

বাংলা ব্যাকরণ কাকে বলে? 

যে শাস্ত্রে বাংলা ভাষার বিভিন্ন উপাদানের গঠনপ্রকৃতি ও স্বরূপ বিশ্লেষিত হয় এবং এদের সম্পর্ক ও সুষ্ঠু প্রয়োগবিধি আলোচিত হয়, তাই বাংলা ব্যাকরণ। 

বাংলা ব্যাকরণ কত প্রকার এবং কি কি? 

বাংলা ব্যাকরণ প্রধানত চার প্রকার। বাংলা ব্যাকরণসহ সব ভাষার ব্যাকরণেই প্রধানত চারটি বিষয়ের আলোচনা করা হয়। যেমন: 

১. ধ্বনিতত্ত্ব 

২. শব্দতত্ত্ব বা রূপতত্ত্ব 

৩. বাক্যতত্ত্ব বা পদক্রম 

৪. অর্থতত্ত্ব। 

এছাড়া অভিধানতত্ত্ব, ছন্দ ও অলংকার প্রভৃতিও ব্যাকরণের আলোচ্য।

বাংলা ব্যাকরণের এ চারটি বিষয়ে যা আলোচিত হয় :

১। ধ্বনিতত্ত্ব : ধ্বনিতত্ত্বের আলোচ্য বিষয়  হচ্ছে- ধ্বনির উচ্চারণপ্রণালী, উচ্চারণের স্থান, ধ্বনির প্রতীক বা বর্ণের বিন্যাস, ধ্বনিসংযোগ বা সন্ধি, ধ্বনির পরিবর্তন ও লোপ, ণত্ব ও ষত্ব-বিধান ইত্যাদি বাংলা ব্যাকরণে ধ্বনিতত্ত্বের আলোচ্য বিষয়।

২। রূপতত্ত্ব : এক বা একাধিক ধ্বনির অর্থবোধক সম্মিলনে শব্দ তৈরি হয়, শব্দের ক্ষুদ্রাংশকে বলা হয় রূপ। রূপ গঠন করে শব্দ। সেই জন্য শব্দতত্ত্বকে রূপতত্ত্ব বলে। ভূত তত্ত্বের আলোচ্য বিষয়গুলো হচ্ছে উপসর্গ, সমাস, প্রত্যয়, শব্দরূপ, ধাতুরূপ, পদ-প্রকরণ, ক্রিয়ার কাল, বচন, লিঙ্গ, পুরুষ ইত্যাদি শব্দতত্ত্বের আলোচ্য বিষয়।

৩। বাক্যতত্ত্ব :  বাক্যতত্ত্বের আলোচ্য বিষয়গুলো হচ্ছে বাক্যের সঠিক গঠনপ্রণালী, বিভিন্ন উপাদানের সংযোজন, বিয়োজন, এদের সার্থক ব্যবহারযোগ্যতা, বাক্যমধ্যে শব্দ বা পদের রূপ-পরিবর্তন ইত্যাদি বিষয় বাক্যতত্ত্বে আলোচিত হয়।

৪। অর্থতত্ত্ব :  পার্থ তত্ত্বের আলোচ্য বিষয়গুলো হচ্ছে শব্দের অর্থবিচার, বাক্যের অর্থবিচার, অর্থের বিভিন্ন প্রকারভেদ যেমন- মুখ্যার্থ, গৌণার্থ, বিপরীতার্থ ইত্যাদি অর্থতত্ত্বের আলোচ্য বিষয়।

বাংলা ব্যাকরণ এর ইতিহাস 


বাংলা ব্যাকরণ প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে অনেক ব্যাকরণবিদ অনেক ইতিহাস রচনা করেছেন।  নিম্নে কয়েকটি ব্যক্তিদের প্রতিষ্ঠার ইতিহাস আলোচনা করা হলো । বাংলা ব্যাকরণ রচনার ইতিহাস বাংলা ব্যাকরণ রচনার ইতিহাস ২৫০ বছরেরও বেশি। ব্যাকরণের উৎপত্তি ও ক্রমবিকাশকাল বলতে গেলে সংস্কৃত ব্যাকরণের ধারাটি ২৫০০ বছরের অর্থাৎ পাণিনি থেকে বিদ্যাসাগর আর বাংলা ব্যাকরণের ধারাটি ২৫০ বছরের অর্থাৎ মনোএল—দ্যা—আসসুম্পসাঁও থেকে ড. সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়, ড. মুহম্মদ শহিদুল্লাহ ও ড. সুকুমার সেন পর্যন্ত। বাংলা ভাষার প্রথম ব্যাকরণ রচিত হয় ইউরোপীয়দের হাত ধরে। বিদেশিরা নানা প্রয়োজনে ভারতবর্ষের আ লিক ভাষাসমূহ শিখতে এবং সহগামীদের শেখাতে বাধ্য হয়েছিল।

ফলে তাঁদের প্রয়োজনই বাংলাসহ অন্যান্য প্রাদেশিক ভাষার ব্যাকরণ রচনায় তাঁদেরকে উৎসাহিত করেছিল। পণ্ডিত ঈশরচন্দ্র বিদ্যাসাগর রচিত ‘ব্যাকরণ কৌমুদী’তে ‘সিদ্ধান্তকৌমুদী’ ও ‘মুগ্ধবোধ’ ইত্যাদি ব্যাকরণের প্রভাব লক্ষ করা যায়। ‘ব্যাকরণ কৌমুদী’তে বাংলা ব্যাখ্যা সংযোজিত হওয়ায় এবং শব্দ ও ধাতুরূপ ইত্যাদির বিন্যাস ও আলোচনা ব্যাপক থাকায় ব্যাকরণ চর্চার ক্ষেত্রে তা সহজতর হয়। শব্দ ও ক্রিয়ারূপের বিন্যাস, সন্ধি, সমাস, ধাতুর বিভাগ ইত্যাদি বহু বিষয়ের জন্য বর্তমান বাংলা ব্যাকরণ ঈশরচন্দ্র বিদ্যাসাগর রচিত ‘ব্যাকরণ কৌমুদী’র কাছে ঋণী হয়ে আছে।  

বাংলা ব্যাকরণের প্রথম গ্রন্থ (পতুর্গিজ ভাষায়)— ”ঠড়পধনঁষধৎরড় বস ওহফরড়সধ ইবহমধষষধ’ব চড়ৎঃঁমঁবু উরারফরফড় বস ফঁধং ঢ়ধৎঃবং”. (রচয়িতা)— মনোএল দ্যা আসসুম্পসাঁও, ১৭৪৩ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত হয় লিসবন থাকে)। মনোএল দ্যা আসুম্পসাঁও রচিত গ্রন্থটি মূলত— একটি অভিধান, যাতে পুর্তগিজ থেকে বাংলা এবং বাংলা থেকে পতুর্গিজ শব্দ অনুবাদ করা হয়েছে।

বাংলা ব্যাকরণ ও এর আলোচ্য বিষয় থেকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন এবং উত্তর নিচে দেওয়া হলঃ

১. ব্যাকরণের প্রধান কাজ হচ্ছে— উ: ভাষার বিশ্লেষণ 

২. ব্যাকরণ ভাষাকে কী নির্দেশ করে ? উ: ব্যাকরণ ভাষাকে বর্ণনা করে

৩. বাংলা ভাষার তিনটি মে․লিক অংশ রয়েছে, এগুলো কি কি ? উ: ধ্বনি, শব্দ, বাক্য

৪. ব্যাকরণের উচ্চতর পর্যায়ে আলোচিত হয় কোনটি ? উ: ধ্বনিতত্ব

৫. ‘ব্যাকরণ’ শব্দের ব্যুৎপত্তিগত অর্থ হলো— উ: বিশেষভাবে বিশ্লেষণ 

৬. বাংলা ব্যাকরণের নিয়ম অনুসারে কোন পদ ছাড়া বাক্য গঠন করা যায় না ? উ: ক্রিয়াপদ

৭. ‘বাগধারা’ ব্যাকরণের কোন অংশে আলোচিত হয় ? উ: বাক্যতত্ত্ব

৮. ‘ব্যকরণ’ শব্দের বিশ্লেষিত রুপ কোনটি ? উ: বি+আ+ক+ৃঅন

৯. শব্দ, শব্দের গঠন, বচন, লিঙ্গ, কারক ইত্যাদি কোন তত্ত্বের আলোচ্য বিষয় ? উ: রুপতত্ত্ব

১০. ‘সন্ধি’ ব্যাকরনের কোন অংশে আলোচিত হয় ? উ: ধ্বনিতত্ত্বে

১১. ক্রিয়ামূল, ক্রিয়ার কাল ও পুরুষ ইত্যাদি ব্যাকরণের কোন অংশের আলোচ্য বিষয় ? উ: রুপতত্ত্ব

১২. বাংলা ব্যাকরণের ধ্বনিতত্ত্ব অংশে কোন বিষয়টি আলোচনা করা হয় ? উ: ণ—ত্ব ও ষ—ত্ব বিধান

১৩. ‘ক্রিয়ার কাল’ ব্যাকরণের কোন অংশের আলোচ্য বিষয় ? উ: রুপতত্ত্ব

১৪. ব্যাকরণের কোন অংশে কারক ও সমাস আলোচিত হয় ? উ: শব্দতত্ত্বে

১৫. কোনটি ঠিক ? উ: ব্যাকরণ ভাষার অনুগাম

১৬। ব্যাকরণ এর সঠিক অর্থ কি?

– বিশেষভাবে বিশ্লেষণ ।

১৭। ব্যাকরণকে ভাষার কি বলা হয়?

– সংবিধান বলা হয়।

১৮।  ব্যাকরণের আলোচ্য বিষয় কয়টি এবং কি কি?

– ব্যাকরণের আলোচ্য বিষয় চারটি  এবং  সেগুলো হচ্ছে ধ্বনিতত্ত্ব,  রুপ তত্ত্ব,  শব্দের অর্থ এবং অর্থতত্ত।

প্রিয় জ্ঞানপিপাসু বন্ধুরা পূর্ব পর্যন্ত মানবিক সহায়তা করার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। আজকে আমরা আলোচনা করলাম বাংলা ব্যাকরণ কাকে বলে এবং বাংলা ব্যাকরণের আলোচ্য বিষয় কয়টি এবং বাংলাদেশের ইতিহাস ইত্যাদি টপিক নিয়ে।  প্রিয় পাঠক পরবর্তী দিনে কি রকম  পোস্ট চাই তা অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। এবং আজকে যদি কোন ভুল-ভ্রান্তি হয়ে থাকে ভুল সঠিক করার সুযোগ করে দেবেন।  প্রিয় বন্ধুরা আজকে এখানেই শেষ করছি সবার শুভ কামনা করে আমি মোঃ শাহাবুদ্দিন মিয়া। 

আড়ও পড়ুন…

পিএসসি নির্ধারিত ১১ জন কবি সাহিত্যিক থেকে প্রশ্ন ও উত্তর: বিসিএস পরীক্ষার জন্য পিএসসি কর্তৃক 11 জন কবি সাহিত্যিক নির্ধারণ করে দিয়েছেন কৃষি মন্ত্রণালয়। এছাড়া বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি চাকরির পরীক্ষায় উপরোক্ত 11 জন কবি সাহিত্যিক থেকে প্রশ্ন প্রায়ই আসে। পিএসসি কর্তৃক 11 জন কবি সাহিত্যিক  গুলো হলেন – ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, মীর মোশারফ হোসেন, কাজী নজরুল ইসলাম, জসীমউদ্দী্‌ রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন, মাইকেল মধুসূদন দত্ত,  দীনবন্ধু মিত্র, কায়কোবাদ, ফররুখ আহমদ ।নিম্নে আমরা উপরোক্ত 11 জন কবি সাহিত্যিক থেকে বিভিন্ন চাকরির পরীক্ষায় বারবার আসা প্রশ্ন গুলো একসাথে তুলে ধরেছি। আশা করি আজকের আর্টিকেলটি তোমাদের অনেক উপকারে আসবে বিভিন্ন চাকরির পরীক্ষার জন্য। 

পিএসসি নির্ধারিত ১১ জন কবি সাহিত্যিক থেকে প্রশ্ন ও উত্তর

পিএসসি নির্ধারিত ১১ জন কবি সাহিত্যিক থেকে প্রশ্ন ও উত্তর
পিএসসি নির্ধারিত ১১ জন কবি সাহিত্যিক থেকে প্রশ্ন ও উত্তর

পিএসসি নির্ধারিত ১১ জন কবি সাহিত্যিক থেকে প্রশ্ন ও উত্তর নিম্মে দেওয়া হলঃ

ঈশ্বরচন্দ্রবিদ্যাসাগরঃ (১৮২০-১৮৯১) 

১। বিদ্যাসাগর কোন সালে জন্মগ্রহন করেন? 🙋Answer: ১৮২০ সালে

২। বিদ্যাসাগর উপাধি দেয়া হয় কোথা থেকে? 🙋Answer: সংস্কৃত কলেজ থেকে

৩। বাংলা গদ্যের জনক হিসেবে খ্যাত কে? 🙋Answer: ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর

৪। বাংলা গদ্যে যতি বা বিরামচিহ্ন প্রথম স্থাপন করেন কে? 🙋Answer: ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর

৫। ঈশ্বরচন্দ্রের কয়েকটি মৌলিক রচনার নাম কি কি? 🙋Answer: অতি অল্প হইল, আবার অতি অল্প হইল, ব্রজবিলাস, বিধবা বিবাহ ও যশোরের হিন্দু ধর্মরক্ষিণী সভা, রত্ন পরীক্ষা। 

৬। ঈশ্বরচন্দ্রের কয়েকটি বিখ্যাত গদ্যগ্রন্থের নাম কি কিঃ 🙋Answer:- বেতাল পঞ্চবিংশতি, শকুন্তলা, সীতার বনবাস ও ভ্রান্তিবিলাস।

৭। বিদ্যাসাগরের প্রথম প্রকাশিত গ্রন্থ কোনটি? 🙋Answer: বেতাল পঞ্চবিংশতি (১৮৪৭)

৮। বিদ্যাসাগর রচিত ব্যাকরণগ্রন্থের নাম কি? 🙋Answer: ব্যাকরণ কৌমুদী

৯। বিদ্যাসাগর কোন আন্দোলনের নেতৃত্ব দেন? 🙋Answer: বিধবা বিবাহ আন্দোলন

১০। বিদ্যাসাগর কোন সালে মৃত্যুবরণ করেন? 🙋Answer: ১৮৯১ সালে।

কাজী নজরুল ইসলাম (১৮৯৯-১৯৭৬) 

১। কাজী নজরুল ইসলাম কোন সালে জন্মগ্রহন করেন? ১৮৯৯ সালে

২। বাংলাদেশের রণসঙ্গীতের রচয়িতা কে? 🙋Answer: কাজী ন নজরুল ইসলাম 

৩। নজরুলের কোন কবিতা প্রকাশিত হলে তিনি গ্রেফতার হন? 🙋Answer: আনন্দময়ীর আগমনে

৪। কাজী নজরুল ইসলামকে রবীন্দ্রনাথ তাঁর র কোন রচনাটি উৎসর্গ করন? 🙋Answer: বসন্ত

৫। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে নজরুল তার কোন রচনাটি উৎসর্গ করেন? 🙋Answer: সঞ্চিতা

৬। নজরুলের প্রথম প্রকাশিত গ্রন্থের নাম কি? 🙋Answer: ব্যথার দান (১৯২২) ৭। নজরুলের প্রথম প্রকাশিত কবিতার নাম কি? 🙋Answer: মুক্তি

৮। নজরুলের প্রথম প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থের নাম কি? 🙋Answer: অগ্নিবীনা

৯। নজরুলের কাব্যগ্রন্থগুলো কি কি? 🙋Answer: সন্ধ্যা, নতুন চাঁদ, ছায়ানট, প্রলয় শিখা, অগ্নিবীনা, সাত ভাই চম্পা, সিন্দুহিন্দোল, ফনিমনসা, চক্রবাক, সর্বহারা, ঝড় হাওয়া, জিঞ্জির, সাম্যবাদী, মরুভাস্কর, শেষ সওগাত, ঝিঙ্গেফুল, বিষের বাশি, দোলনচাঁপা

ছন্দে ছন্দে মনে রাখা যায়ঃ

কোনো এক সন্ধ্যায় নতুন চাঁদ দেখার সময় ছায়ানটে লাগা প্রলয় শিখার অগ্নিবীনা দেখে সাত ভাই চম্পা, দোলনচাঁপা ও ফনিমনসারা চক্রবাক হয়ে সর্বহারার মতো ঝড় হাওয়ার গতিতে জিঞ্জিরার দিকে ছুটতে লাগল। সাম্যবাদী মরুভাস্করেরা শেষ সওগাত ঝিঙ্গেফুল ও বিষের বাশি হাতে নিয়ে সিন্দুহিন্দোলের দিকে এগিয়ে চললেন।

১০। নজরুলের উপন্যাসগুলো কি কি? 🙋Answer: বাঁধনহারা, কুহেলিকা ও মৃত্যুক্ষুধা।

১১। নজরুলের গল্পগ্রন্থগুলোর নাম কি? 🙋Answer: শিউলিমালা, ব্যথারদান ও রিক্তের বেদন।

১২। কাজী নজরুল ইসলাম কোন সালে প্রথম ঢাকায় আসেন? 🙋Answer: ১৯২৬ সালে। ১৩৷ কাজী নজরুল ইসলাম মোট কতবার ঢাকায় আসেন? ১৩ বার।

১৪। কাজী নজরুল ইসলাম কোন সালে মৃত্যুবরন করেন? 🙋Answer: ১৯৭৬ সালে

কায়কোবাদ (১৮৫৭-১৯৫১)

১। কায়কোবাদের প্রকৃত নাম কি? 🙋Answer: কাজেম আল কোরেশী। ২। কায়কোবাদের বিখ্যাত কাব্যগ্রন্থগুলোর নাম কি কি? 🙋Answer:মহাশ্মশান, অশ্রুমালা, বিরহ বিলাপ,

কুসুমকানন, শিবমন্দির, ও অমিয়ধারা। যুদ্ধের কাহিনী অবলম্বনে।

৩। কোন ঘটনা অবলম্বনে কায়কোবাদের মহাশ্মশান মহাকাব্যটি রচিত হয়? 🙋Answer: পানি পথের তৃতীয় 

৪। বাঙ্গালী মুসলমান কবিদের মধ্যে প্রথম মহাকাব্য রচনা করেন কে? 🙋Answer: কায়কোবাদ।

৫। কায়কোবাদের রচিত কবিতার নাম কি? 🙋Answer: বাংলা আমার

৬। কায়কোবাদের অশ্রুমালা কাব্যগ্রন্থের মূল সুর কি? 🙋Answer: প্রেম-বেদনা, আবেগ ও আনন্দ বিরহ।

জসীমউদদীন (১৯০৩-১৯৭৬) 

১। জসীমউদ্দীন কোথায় জন্মগ্রহন করেন? 🙋Answer: মাতুলালয়, তাম্বুলখানা গ্রাম, ফরিদপুর।

২। জসীমউদদীনের উপাধি কি? 🙋Answer: পল্লীকবি। 

৩। জসীমউদ্দীন ছাত্র থাকা অবস্থায় তাঁর কোন কবিতা কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাধ্যমিকের পাঠ্যে তালিকাভুক্ত করা হয়? 🙋Answer: কবর কবিতা।

৪। কবর কবিতাটি জসীমউদদীনের কোন কাব্যগ্রন্থের অন্তর্ভূক্ত? 🙋Answer: রাখালী।

ছন্দে ছন্দে মনে রাখা যায়ঃ

রঙ্গিলা নায়ের মাঝি হাসু রুপবতী সকিনা ও রাখালীকে নিয়ে বালুচরের ধানক্ষেতের মধ্য দিয়ে সোজান বাদিয়ার ঘাটে গিয়ে এক পয়সার বাঁশি কিনে ফিরে আসার সময় নকশী কাঁথার মাঠের মাটির কান্না দেখল।

৭। জসীমউদদীনের রচিত নাটকগুলো কি কি? 🙋Answer: পদ্মাপাড়, বেদের মেয়ে, মধুমালা, পল্লীবধূ ও গ্রামের মায়া।

৮। জসীমউদদীনের রচিত একমাত্র উপন্যাসের নাম কি? 🙋Answer: বোবা কাহিনী।

৯। নকসী কাঁথার মাঠ কাব্যগ্রন্থটি কত সালে প্রকাশিত হয়? 🙋Answer: ১৯২৯ সালে।

১০। নকসী কাঁথার মাঠ কাব্যগ্রন্থটির ইংরেজি অনুবাদের নাম কি? 🙋Answer: ‘Field of the Embroidery Quilt.

১১। নকসী কাঁথার মাঠ কাব্যগ্রন্থটির ইংরেজি অনুবাদকের নাম কি? 🙋Answer: ই. এম. মরফোর্ড।

১২। জসীমউদদীনের ছদ্মনাম কি? জমীরউদ্দীন মোল্লা।

১৩। জসীমউদদীন কত সালে একুশে পদক পান? 🙋Answer: ১৯৭৬ সালে। 

পিএসসি নির্ধারিত ১১ জন কবি সাহিত্যিক থেকে প্রশ্ন ও উত্তর

পিএসসি নির্ধারিত ১১ জন কবি সাহিত্যিক থেকে প্রশ্ন ও উত্তর
পিএসসি নির্ধারিত ১১ জন কবি সাহিত্যিক থেকে প্রশ্ন ও উত্তর

দীনবন্ধু মিত্র (১৮৩০-১৮৭৩) 

১। নীলকরদের অত্যাচার অবলম্বনে রচিত দীনবন্ধু মিত্রের নাটকের নাম কি? 🙋Answer: নীল দর্পণ (১৮৬০)

২। দীনবন্ধু মিত্রের কাব্যগুলো কি কি? 🙋Answer: সুরধুনী কাব্য ও দ্বাদশ কবিতা।

৩। দীনবন্ধু মিত্রের রচিত প্রহসনগুলো কি কি? 🙋Answer: বিয়ে পাগলা বুড়ো, সধবার একাদশী।

৪। দীনবন্ধু মিত্রের রচিত নাটকগুলো কি কি? 🙋Answer: নীল দর্পণ, নবীন তপস্বিনী, লীলাবতী, জামাই বারিক ও কমলে কামিনী।

৫। দীনবন্ধু মিত্রের রচিত নীল দর্পণ নাটকটি ইংরেজিতে অনুবাদ করেন কে? 🙋Answer: মাইকেল মধুসূদন দত্ত। 

৬৷ নীল দর্পণ নাটকটি প্রথম কোথায় মঞ্চস্থ হয়? 🙋Answer: ঢাকায়।

ফররুখ আহমেদ (১৯১৮-১৯৭৪)

১। ফররুখ আহমেদ কোথায় জন্মগ্রহন করেন? 🙋Answer: মাঝআইল গ্রাম, যশোর।

২। ফররুখ আহমেদ রচিত কাব্যগ্রন্থগুলোর নাম কি কি? 🙋Answer:সাত সাগরের মাঝি, নৌফেল, হাতেম

ছন্দে ছন্দে মনে রাখা যায়।

তায়ী, সিরাজাম মুনিরা ও মুহূর্তের কবিতা। ঝড়ের কবলে পরে সাত সাগরের মাঝি, হাতেম তায়ী- সিরাজাম মুনিরা ও নৌফেলকে বিপদের মুহূর্তের কবিতা পড়তে বললেন।

৩। ফররুখ আহমেদ রচিত শিশুতোষ গ্রন্থের নাম কি ? 🙋Answer: পাখির বাসা। 

৪। ফররুখ আহমেদ রচিত পাখির বাসা গ্রন্থের জন্য তিনি কোন পুরস্কার লাভ করেন? ইউনেস্ক পুরস্কার (১৯৬৬) 

৫। ফররুখ আহমেদ রচিত সাত সাগরের মাঝি গ্রন্থে কতটি কবিতা আছে? 🙋Answer: ১৯ টি।

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধায় (১৮৩৮-১৮৯৪) 

১। বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধায়ের রচিত প্রথম কাব্যগ্রন্থের নাম 🙋Answer: ললিতা তথা মানস।

২। বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধায়ের রচিত প্রথম বাংলা নাম কি? 🙋Answer: দুর্গেশনন্দিনী।

৩। বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধায়ের উপন্যাসগুলো কি দুর্গেষনন্দীনি, কপালকুণ্ডলা, কৃষ্ণকান্তের ক মৃণালীনি, রাধারানীকে রজনীতে ও যুগলাঙ্গুরীয় , আনন্দ মঠের বিষবৃক্ষের, রাজসিংহ, দেবী চৌধুরানীর চন্দ্রশেখর, শীতারাম,

ছন্দে ছন্দে মনে রাখা যায়।

এক রজনীতে ইন্দিরা রোডে আনন্দ মঠের সামনে বিষবৃক্ষের নিচে দাড়িয়ে দুর্গেষনন্দীনি ও কপালকুণ্ডলা কৃষ্ণকান্তের উইল পড়ছিলো। কিন্তু রাজসিংহ তা দেখে দেবী চৌধুরানীর দুই ছেলে চন্দ্রশেখর এবং শীতারাম ও দুই মেয়ে মৃণালীনি ও রাধারানীকে বলে দিলে তারা ঐ যুগলাঙ্গুরীয়কে শাস্তি দেওয়ার জন্য প্রস্তুত হলো।

৪। বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধায়ের কাব্যগ্রন্থগুলো কি কি? 🙋Answer:লোকরহস্য, কমলকান্তের দপ্তর, সমালোচনা, সাম্য, কৃষ্ণচরিত্র ও ধর্মতত্ত্ব অনুশীলন।

৫। বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধায়ের ছদ্মনাম কি? 🙋Answer: কমলাকান্ত। 

৬। বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধায়ের সম্পাদিত পত্রিকার নাম কি? 🙋Answer: বঙ্গদর্শন।#

মাইকেল মধুসূদন দত্ত (১৮২৪-১৮৭৩) 

১) মাইকেল মধুসূদন দত্তের প্রথম প্রকাশিত গ্রন্থের নাম কি? 🙋Answer: Captive Ladie (১৮৪৯) 

২) মাইকেল মধুসূদন দত্তের রচিত প্রহসনগুলো কি কি? 🙋Answer:একেই কি বলে সভ্যতা ও বুড় সালিকের ঘাড়ে রোঁ।

৩। মাইকেল মধুসূদন দত্তের রচিত বাংলা নাটকগুলো কি কি? 🙋Answer: শর্মিষ্ঠা, পদ্মাবর্তী ও কৃষ্ণকুমারী। 

৪। মাইকেল মধুসূদন দত্তের রচিত কাব্যগ্রন্থগুলো কি কি? 🙋Answer: তিলোত্তমাসম্ভার কাব্য, বীরাঙ্গনা কাব্য ও ব্রজাঙ্গনা।

বিবিধ

৫। মাইকেল মধুসূদন দত্তের রচিত অমর মহাকাব্যের নাম কি? 🙋Answer: মেঘনাদবধ কাব্য।

৬। বীরাঙ্গনা কাব্যটি কোন ধরনের কাব্য? 🙋Answer: পত্রকাব্য।

৭। অমিত্রাক্ষর ছন্দের প্রবর্তক কে? 🙋Answer: মাইকেল মধুসূদন দত্ত। 

মীর মশাররফ হোসেন (১৮৪৭-১৯১১) 

১। মীর মশাররফ হোসেন সম্পাদিত পত্রিকা দু’টির নাম কি কি? 🙋Answer: আজীজননেহার ও হিতকারী। 

২।মীর মশাররফ হোসেনের প্রথম গ্রন্থ কোনটি? 🙋Answer: রত্নবর্তী

৩। মীর মশাররফ হোসেনের নাটক গুলো কি কি? 🙋Answer: জমীদার দর্পণ,বসন্তকুমারী, বেহুলা গীতাভিনয়, টালা অভিনয়, নিয়তি কি অবনতি, ভাই ভাই এইতো চাই, ফাঁস কাগজ, একি, বাঁধা খাতা ইত্যাদি।

৪। মীর মশাররফ হোসেনের গদ্য ও অন্যান্য গ্রন্থগুলো কি কি? 🙋Answer: রত্নবর্তী, বিষাদসিন্ধু, গোজীবন, উদাসীন পথিকের মনের কথা, তহমিনা, রাজিয়া খাতুন, এসলামের জয়, মৌলুদ শরীফ, পোরাই ব্রিজ, পঞ্চনারী, বিবি খোদেজার বিবাহ মদীনার গৌরব ও মুসলমানের বাংলা শিক্ষা

৫। মীর মশাররফ হোসেনের একমাত্র প্রহসন কি? 🙋Answer: এর কি উপায়?

৬৷ মীর মশাররফ হোসেনের আত্মজীবনীমূলক উপন্যাসের নাম কি ? 🙋Answer: গাজী মিয়াঁর বস্তানী 

৭। মীর মশাররফ হোসেনের আত্মজীবনীমূলক গ্রন্থ কি কি ? 🙋Answer: আমার জীবনী ও কুলসুম জীবনী।

৮। মীর মশাররফ হোসেনের ছদ্মনাম কি ছিলো? 🙋Answer: গাজী মিয়াঁ

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (১৮৬১-১৯৪১) 

৩। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রথম প্রকাশিত নাম কি? 🙋Answer: কবি কাহিনী। ৪। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রথম প্রকাশিত নাটকের নাম কি? 🙋Answer: বাল্মীকি প্রতিভা।

৫। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রথম প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থেউপন্যাসের নাম কি? 🙋Answer: বৌ ঠাকুরাণীর হাট। 

৬। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রথম প্রকাশিত ছোট গল্পের নাম কি? 🙋Answer: ভিখারিনী।

৭। বাংলা ছোট গল্পের জনক বলা হয় কাকে? 🙋Answer: রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে।

৮। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ছদ্মনাম কি? 🙋Answer: ভানুসিংহ ঠাকুর। 

৯। গীতাঞ্জলি কাব্য কত সালে প্রকাশিত হয়? 🙋Answer: ১৯১০ সালে।

১০। গীতাঞ্জলি বা Song Offerings এর ভূমিকা লেখেন কে? 🙋Answer: ইংরেজ কবি ডব্লিউ বি ইয়েটস। 

১১। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কাব্যগ্রন্থগুলো কি কি? 🙋Answer: ভানুসিংহ, গীতাঞ্জলি, প্রভাত সংগীত, সন্ধ্যা সংগীত বিচিত্রা, পূরবী,, পত্রপুট, শ্যামলী, মহুয়া, সোনার তরী, খেয়া, হিন্দুমেলার উপহার, ক্ষণিকা, নবজাতক, নৈবেদ্য, জন্মদিন, রোগশয্যা, আরোগ্য কণিকা, চৈতালি, চিত্রা, মানসী, বনফুল, মায়ার খেলা, ছবি ও গান, বলাকা, সানাই, গীতালি, কল্পনা, কড়ি ও কোমল ও শেষ লেখা।

ছন্দে ছন্দে মনে রাখা যায়ঃ

ভানুসিংহ গীতাঞ্জলির প্রভাত সংগীত, সন্ধ্যা সংগীত ও বিচিত্রা গাইতে গাইতে পূরবী, পত্রপুট, শ্যামলী ও মহুয়াকে সাথে নিয়ে সোনার তরী খেয়ায় করে হিন্দুমেলার উপহার কিনতে গেল। এদিকে সেদিন ছিলো ভানুসিংহের স্ত্রী ক্ষণিকার নবজাতক নৈবেদ্যর জন্মদিন। ক্ষণিকা রোগশয্যা থেকে আরোগ্য লাভ করার পর তার বোন কণিকা, চৈতালি, চিত্রা ও মানসীদের নিয়ে বনফুলের মিষ্টি খেলো। বাসায় ফেরার আগে তারা বলাকা সিনেমা হলে মায়ার খেলা ছবি ও গান দেখল। ভানু সিংহ তার নবজাতক পুত্রের কথা শুনে

সানাই ও গীতালি বাজাতে বাজাতে কল্পনার রাজ্যে হারিয়ে যায় এবং কড়ি ও কোমল নিয়ে বাসায় ফিরে এসে তার বিখ্যাত শেষ লেখাটি পুত্রকে উৎসর্গ করেন। 

১২। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের উপন্যাসগুলো কি কি? 🙋Answer: শেষের কবিতা, যোগাযোগ, চোখের গোরা, চতুরঙ্গ, ঘরে বাইরে ও চার অধ্যায়।

১৩। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নাটকগুলো কি কি? 🙋Answer: বিসর্জন, রাজা, ডাকঘর, অচলায়তন, চিরকুমার সভা, রক্তকবরী ও তাসের দেশ।

১৪। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কতবার ঢাকায় আসেন? 🙋Answer: ২ বার।

বেগম রোকেয়া (১৮৮০-১৯৩২) 

১। বেগম রোকেয়ার রচিত উপন্যাসের নাম কি? 🙋Answer: পদ্মরাগ।

২। বেগম রোকেয়ার গ্রন্থ সমূহ কি কি? 🙋Answer: সুলতানার স্বপ্ন, ডিলিসিয়া, অবরোধবাসিনী, পদ্মরাগ ও মতিচূর।

ছন্দে ছন্দে মনে রাখা যায়ঃ

সুলতানার স্বপ্ন ছিলো ডিলিসিয়াদের মত অবরোধবাসিনীদের মুক্ত করে তাদের হাতে পদ্মরাগ ও মতিচূর ফুল তুলে দেবেন।

৩। বেগম রোকেয়া মূলত কি হিসেবে পরিচিত? 🙋Answer: মুসলিম নারী জাগরনের অগ্রদূত।

৪। বেগম রোকেয়ার লেখাগুলো কোন কোন পত্রিকায় মোহাম্মাদী। erGuide হত? 🙋Answer: নবনূর, সওগাত 

ছন্দে ছন্দে মনে রাখা যায়ঃ

সুলতানার স্বপ্ন ছিলো ডিলিসিয়াদের মত অবরোধব BDC । মুক্ত করে তাদের হাতে পদ্মরাগ ও মতিচূর ফুল তুলে দেবেন।

শেষ কথা

প্রিয় পাঠক বন্ধুরা, ধৈর্য সহকারে পুরো পোস্ট পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আমরা উপর পিএসসি কর্তৃক নির্ধারিত 11 জল জন কবি কবি সাহিত্যিক এর জীবনী থেকে বিভিন্ন পরীক্ষায় আসা প্রশ্ন সমূহ এবং চেষ্টা করেছি সঠিক উত্তর দেওয়ার জন্য। কোন প্রশ্নের ভুল আমাদের আমরা পর্ব এর সমাধান  দিব। সবার শুভ কামনা করে এখানেই শেষ করছি আমি মোহাম্মদ সাকিবুল হাসান। 

আড় পরুন…

বিপিএসসির ইতিহাস

বিপিএসসির ইতিহাস
বিপিএসসির ইতিহাস


বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশন প্রধানত বিভিন্ন সরকারি চাকুরি ও পদে নিয়োগ দানের লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত একটি সাংবিধানিক সংস্থা। সংস্থাটি সরকারি কর্মচারীদের পদোন্নতি, পদায়ন, বদলি, শৃঙ্খলা ও আপিলের মতো বিষয়ের ক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ার সঙ্গেও জড়িত। ব্রিটিশ শাসনের ঐতিহ্যবাহী অধিকাংশ দেশে ‘সিভিল’ বা ‘পাবলিক’ সার্ভিস কমিশন গঠনের মূল উদ্দেশ্য হলো সরকারি চাকুরিতে নিয়োগ প্রদান এবং চাকুরি সংক্রান্ত অন্যান্য বিষয়ে সকল সিদ্ধান্ত যাতে মেধা ও সমদর্শিতার নীতির সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ হয় তা নিশ্চিতকরণ। বাংলাদেশে এই সংস্থা বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশন বা বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন নামে অভিহিত।

ভারত উপমহাদেশে ১৯২৬ সালে প্রথম পাবলিক সার্ভিস কমিশন নামে একটি কমিশন গঠিত হয় এবং এটি ব্রিটিশ ভারতে কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন চাকুরিতে নিয়োগ দানের কার্যক্রম পরিচালনা করত। ১৯১৯ সালের ভারত শাসন আইন এবং পরবর্তী ১৯৩৫ সালের ভারত শাসন আইন অনুযায়ী বিভিন্ন প্রদেশে দায়িত্বশীল সরকার গঠিত হওয়ার পর ১৯৩৭ সালে বেঙ্গল পাবলিক সার্ভিস কমিশনসহ প্রদেশ পর্যায়েও অনুরূপ কমিশন গঠিত হয়। ১৯৪৭ সালে ভারত বিভাগের পর ব্রিটিশ ভারতের পাবলিক সার্ভিস কমিশনের আদলে পাকিস্তানের কেন্দ্র ও প্রদেশ উভয় পর্যায়েই অনুরূপ পাবলিক সার্ভিস কমিশন গঠিত হয়। এভাবেই ১৯৪৭ সালের আগস্ট মাসে পূর্ববঙ্গে (পরে পূর্ব পাকিস্তান) পাবলিক সার্ভিস কমিশনের প্রতিষ্ঠা।

বাংলাদেশের স্বাধীনতালাভের পর ১৯৭২ সালে রাষ্ট্রপতির ৩৪ নং আদেশবলে ১৯৭২ সালের মে মাসে প্রাথমিক পর্যায়ে পাবলিক সার্ভিস কমিশন (প্রথম) ও পাবলিক সার্ভিস কমিশন (দ্বিতীয়) নামে দুটি আলাদা কমিশন গঠিত হয়। কিন্তু ১৯৭২ সালের নভেম্বর মাসে গৃহীত সংবিধানে পাবলিক সার্ভিস কমিশন সংক্রান্ত ধারাসমূহ কার্যকর করার লক্ষ্যে সরকার নতুন একটি রাষ্ট্রপতি-আদেশ (রাষ্ট্রপতির আদেশ নং ২৫, ১৯৭৩) জারি করে যা কার্যত ১৯৭২ সালের মে মাস থেকে পাবলিক সার্ভিস কমিশন দুটির আনুষ্ঠানিক নিয়মিতকরণ সম্পন্ন করে। অবশ্য সরকার ১৯৭৭ সালের নভেম্বর মাসে দুটি কমিশনের স্থলে একটি কমিশন স্থাপন করার লক্ষ্যে আরেকটি অধ্যাদেশ জারি করে এবং ১৯৭৭ সালের ২২ ডিসেম্বর এই কমিশনের নামকরণ হয় বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশন।

আইনগত ভিত্তির পরিবর্তে বরং সাংবিধানিক ভিত্তিই বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য। বাংলাদেশের সংবিধানের পাঁচটি অনুচ্ছেদ সংবলিত একটি অধ্যায়ে (৯ম ভাগের ২য়) কমিশনের গঠনপ্রণালী ও কার্যাবলি নির্দেশিত হয়েছে। কমিশনের চেয়ারম্যান এবং সদস্যগণ রাষ্ট্রপতি কর্তৃক (কার্যত প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শক্রমে) পাঁচ বছর মেয়াদে অথবা তাদের বয়স পঁয়ষট্টি বছর পূর্ণ হওয়া পর্যন্ত সময়ের জন্য নিয়োগপ্রাপ্ত হন। নিয়োগযোগ্য সর্বোচ্চ বা সর্বনিম্ন সদস্যের সংখ্যা সংবিধানে নির্দিষ্ট করা হয় নি।

তবে ১৯৭৭ সালে জারিকৃত রাষ্ট্রপতির এক অধ্যাদেশে চেয়ারম্যানসহ এ সংখ্যা সর্বোচ্চ পনেরো (ন্যূনতম ছয়) নির্ধারণ করা হয়েছে। সদস্য হিসেবে নিয়োগ লাভের জন্য বিশেষ যোগ্যতার প্রয়োজন হয় না। তবে কমিশনের মোট সদস্যের অন্তত অর্ধেক থাকবেন ন্যূনতম বিশ বছরের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন সরকারি কর্মকর্তা। সাধারণত সরকারি বিভাগ থেকে নিযুক্ত চেয়ারম্যান ও সদস্যরা সকলেই শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাদের মধ্য থেকে নির্বাচিত হন এবং

অন্যান্যদের অধিকাংশই থাকেন প্রবীণ শিক্ষাবিদ। সরকারি চাকুরি থেকে অবসর গ্রহণের পর একজন কর্মকর্তা পুনরায় কোনো সরকারি চাকুরিতে (পাবলিক সার্ভিস কমিশন সহ) নিয়োগ লাভের যোগ্য বিবেচিত হন না। কিন্তু ব্যতিক্রম ঘটে পাবলিক সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যানের ক্ষেত্রে, যিনি চাকুরি থেকে অবসর গ্রহণ সত্ত্বেও চেয়ারম্যান হিসেবে অতিরিক্ত এক মেয়াদের জন্য এবং একইভাবে কমিশনের একজন সদস্যও অবসর গ্রহণের পর কমিশনের সদস্য বা চেয়ারম্যান হিসেবে অতিরিক্ত এক মেয়াদের জন্য পুনরায় নিয়োগ পেতে পারেন।

About job

Check Also

bcs preparation | বিসিএস পরিক্ষার প্রস্তুতি | সাধারন জ্ঞান প্রস্তুতি

bcs preparation | বিসিএস পরিক্ষার প্রস্তুতি | সাধারন জ্ঞান প্রস্তুতি

bcs preparation | বিসিএস পরিক্ষার প্রস্তুতি | সাধারন জ্ঞান প্রস্তুতিঃ BCS Preparation : BCS (বিসিএস) …

বিসিএস প্রস্ততি | ভূগোল ও পরিবেশ থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

বিসিএস ভূগোল ও পরিবেশ প্রস্তুতি এবং ভূগোল, পরিবেশ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য নিয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.